Home / মিডিয়া নিউজ / এ ব্যবসায় প্রচুর কম্পিটিটর : রিয়াজ

এ ব্যবসায় প্রচুর কম্পিটিটর : রিয়াজ

বাংলাদেশ চলচ্চিত্রে একটা সময় অসংখ্য নায়ক নায়িকা ছিল। তবে ধীরে ধীরে নায়ক নায়িকার সংখ্যা

কমে গেছে। কিন্তু নব্বই দশকের শেষের দিকে যে সকল নায়ক নায়িকা এসেছিল তাদের মধ্যে রিয়াজ

অন্যতম। এই নায়ককে আগের মতো সিনেমায় নিয়মিত দেখা যায় না। তবে এখনো তার জনপ্রিয়তা

কমেনি। তিনি প্রায় সময় নাটকে অভিনয় করেন। এদিকে, এই জনপ্রিয় নায়ক একটি অফিস খুলেছেন। সেই অফিসেই বেশিভাগ সময় কাটান। আর এবার তিনি দেশের একটি জনপ্রিয় সংবাদ পত্রের সঙ্গে কথা বলেছেন। এ সময় তিনি জানিয়েছেন বর্তমান ব্যস্ততা সম্পর্কে।

বাংলা সিনেমার ’চকলেট’ বয় রিয়াজ এখন কেমন আছেন? গণমাধ্যমকে রিয়াজ বলেন, আল্লাহ ভালোই রেখেছেন। একটা সময় অভিনয়ে ব্যস্ত ছিলাম। বর্তমানে ব্যস্ততা নেই বললেই চলে। আগের মতো বছরে এতগুলো সিনেমাও নির্মাণ হয় না। আপনারা সবাই জানেন আমার একটা বিজ্ঞাপনী সংস্থা রয়েছে। সেটার দেখভাল করেই কাটছে। এক সময়ের ব্যস্ত রোমান্টিক নায়কের আজ অফুরন্ত সময় হাতে। কেমন অনুভূতি? এ নায়ক বলেন, খুব যে একটা অবসর সময় কাটাই তাও বলা যাবে না। কারণ আমার নিজস্ব অফিসে অনেক সময় দিতে হয়। নতুন নতুন ক্লায়েন্টদের সঙ্গে প্রজেক্ট নিয়ে মিটিং করতে হয়। এখন তো খুবই চ্যালেঞ্জিং। এ ব্যবসায় প্রচুর কম্পিটিটর। আপনি যদি নতুন কিছু আইডিয়া, নির্মাণশৈলীতে বৈচিত্র্য, মুন্সিয়ানা না দেখাতে পারেন তাহলে কাজ পাওয়া কঠিন।

আর শিল্পী জীবনে অবসর বলে কোনো শব্দ নেই। মৃ’’ত্যু’’র আগ পর্যন্ত তারা প্রতিভার স্বাক্ষর রেখে চলেন। আমিও ব্যতীক্রম নই। শেষ কবে ক্যামেরার সামনে দাঁড়িয়েছেন? রিয়াজের উত্তর- গত রোজার ঈদে এস. এ হক অলীদের টেলিভিশন নাটকে অভিনয় করেছিলাম। একটা সময় শাবনূর ও পূর্ণিমাকে নিয়ে আপনার প্রেমের সম্পর্কের তো জোর গুঞ্জন ছিল? হাসতে হাসতে রিয়াজ বলেন, একসঙ্গে দীর্ঘদিন কাজ করতে গেলে ভালোলাগা হতেই পারে। তবে তাদের সঙ্গে ভালোবাসা ছিল না। বন্ধুত্ব ছিল। পুরনো সহশিল্পীদের সঙ্গে কী যোগাযোগ হয় কিনা জানতে চাইলে রিয়াজ বলেন, যতটুকু সামাজিকতা রক্ষা করতে হয় ততটুকুই রাখা হয়। সবাই যার যার কর্মক্ষেত্র নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছি। উল্লেখযোগ্য শিল্পোত্তীর্ণ সিনেমায় আপনি অভিনয় করেছেন। বিশেষ করে প্রয়াত হুমায়ূন আহমেদের। রাষ্ট্রীয় পুরস্কারেও সম্মানিত হয়েছেন? কাজের অনুভূতি ও অভিজ্ঞতা কেমন ছিল? এ নায়ক বলেন, এ অনুভূতি হাজার শব্দেও বোঝানো যাবে না। সত্যি স্যারের সঙ্গে কাজ করা আমার জন্য সম্মানের। সবচেয়ে সম্মানের যে বিষয়টা আমাকে আজও আন্দোলিত করে সেটা হচ্ছে স্যারের ছবি ’দুই দুয়ারী’ দিয়েই আমার প্রথম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন।

উল্লেখ্য, দেশের এই জনপ্রিয় নায়ক ১৯৯৫ সালে প্রথমে সিনেমায় অভিনয় করেন। আর সেই সময় তিনি দেশের সব থেকে জনপ্রিয় অভিনেতা অভিনেত্রীর সঙ্গে তাল মিলিয়ে অভিনয় করেছেন। এরপর তিনি ১৯৯৭ সালে একক নায়ক হিসেবে অভিনয় করে ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করেছেন। তিনি এরপর একে একে অসংখ্য সিনেমায় অভিনয় করেছেন। তার অভিনীত সিনেমা গুলো দর্শকদের কাছে ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করে। তবে বর্তমানে এই জনপ্রিয় নায়ক কে আগের মতো সিনেমায় নিয়মিত দেখা যায় না।

Check Also

ভালো নেই পূর্ণিমা

ঢাকাই সিনেমার দর্শকপ্রিয় অভিনেত্রী পূর্ণিমা ভালো নেই। হঠাৎ করে কয়েকদিন ধরে ঠাণ্ডাজ্বর ও গলা ব্যথায় …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Recent Comments

No comments to show.