Home / মিডিয়া নিউজ / গায়ে রঙ মেখে থাকতে হবে, তাই দুনিয়া কাপানো সিনেমা অ্যাভাটারে অভিনয় করেননি গোবিন্দ

গায়ে রঙ মেখে থাকতে হবে, তাই দুনিয়া কাপানো সিনেমা অ্যাভাটারে অভিনয় করেননি গোবিন্দ

নব্বইয়ের দশকের অত্যন্ত জনপ্রিয় অভিনেতা গোবিন্দ অসাধারণ অভিনয় দক্ষতা এবং তার

বাচনভঙ্গিতে দর্শক রীতিমত মুগ্ধ ছিল তার সিনেমা আগমন ছিল মূলত আশির দশকে এবং

তার উত্থানে শুরু হয় মূলত নব্বই দশক দিয়ে বলিউডের শীর্ষ অভিনেত্রী দের কাতারে তিনি

পৌঁছে গিয়েছিলেন এবং ব্লকবাস্টার অনেক হিট সিনেমা তিনি দিয়েছেন এবং শতাধিক সিনেমায় অভিনয় করেছেন তিনি

বলিউডের জনপ্রিয় অভিনেতা গোবিন্দ অ্যাভাটার সিনেমার প্রস্তাব ফিরিয়ে দিয়েছেন। দীর্ঘদিন ধরে শরীরে রঙ মেখে থেকে অভিনয় তার দ্বারা সম্ভব নয় বলেই ছবির প্রস্তাবটি ফিরিয়ে দিতে হয়েছে গোবিন্দকে। শুধু তাই নয়, ওই ছবির নামটাও তিনিই দিয়েছিলেন বলে ভারতের এক টেলিভিশন সাক্ষাৎকারে বলেন বলিউডের জনপ্রিয় এই অভিনেতা।

আশির দশকের শেষ দিকে সিনেমায় আবির্ভাব গোবিন্দর। নব্বই দশক মাতিয়েছেন তিনি কৌতুকপূর্ণ সংলাপ আর নাচে। উপহার দিয়েছেন ব্লকবাস্টার হিট অনেক সিনেমা। এখন পর্যন্ত প্রায় ১২০টির বেশি সিনেমাতে অভিনয় করেছেন গোবিন্দ।

গোবিন্দ হিন্দি সিনেমায় যখন দারুণ সময় পার করছিলেন সে সময় জেমস ক্যামেরনের ’অ্যাভাটর’ সিনেমায় অভিনয়ের প্রস্তাব পেয়েছিলেন। সেই প্রস্তাব তিনি ফিরিয়েও দিয়েছিলেন।

তবে তিনি যে শুধু ’অ্যাভাটর’-ই প্রত্যাখান করেছেন তা নয় গাদ্দার, চাঁদনী, তাল এবং দেবদাসের মতো আলোচিত ও হিট হিন্দি সিনেমাগুলো সে সময় ফিরিয়ে দিয়েছিলেন। মূলত সময়ের অভাবেই তিনি এ ছবিগুলো ছেড়ে দিয়েছিলেন। ব্যস্ত শিডউলের জটিলতার জন্য ইচ্ছে থাকলেও কাজগুলো করা হয়নি গোবিন্দর।

ভারতের এক টেলিভিশন চ্যানেলে ২০১৯ সালে রজত শর্মার উপস্থাপনায় এক অনুষ্ঠানে এ অভিনেতা জানিয়েছিলেন, ’আমার কাছে ৪১০ দিনের সময় চাওয়া হয়েছিল ’অ্যাভাটর’ সিনেমার জন্য। বলা হয়েছিল পুরো শরীরে নীল রঙের পেইন্ট ব্যবহার করতে। আমি এই দুটির কোনোটিতেই রাজি ছিলাম না।

তাই শেষ পর্যন্ত হলিউডের শীর্ষ আয় করা এ সিনেমায় কাজ করা হয়নি আমার। তবে সিনেমাটি তৈরি করার সময় আমি জেমস ক্যামেরনকে বলেছিলাম এটি সুপারহিট হবে। আর এঁর নামটাও আমারই দেওয়া। গল্পটা শুনেই বুঝেছিলাম এটা দারুণ একটা গল্প। দর্শককে হলে টানবে। তাই হয়েছে।

গোবিন্দর এই টিভি শো এর পরেই অবশ্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বেশ হাসির পাত্রও বনে যান তিনি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে ট্রল, মিমস এবং ব্যঙ্গ বিদ্রুপের শিকার হন বলিউডের ’হিরো নাম্বার ওয়ান’।

পরবর্তীতে নেটিজেনদের এসব মন্তব্য নিয়ে আলাপকালে গোবিন্দ জানান, ’আমি জানি অনেকেই মনে করেন একজন কমেডি অভিনেতা গোবিন্দ কিভাবে জেমস ক্যামেরনের সিনেমার প্রস্তাব ফিরিয়ে দেন। আমি তাদের এই চিন্তাকে সম্মান করি। তবে আমি কিভাবে এই প্রস্তাব পাই এসব নিয়েও দেখি মানুষের অনেক সন্দেহ।

আমি তাদেরকে প্রশ্ন করতে চাই, একজন চা দোকানদার কিভাবে ধনী হতে পারে? কিংবা একজন টেলিভিশন অভিনেতা কিভাবে সিনেমায় অভিনয় করতে পারে? এ সবও তো অসম্ভব। আমাকে যদি আপনি বিশ্বাস না করেন তাহলে আমার কোনো সমস্যা নেই। কিন্তু আপনি কখনোই আমার যোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুলতে পারেন না।

বলিউডের একসময়ের দুর্দান্ত অভিনেতা ছিলেন গোবিন্দ যেমন তার অভিনয় তেমনি কৌতুকপূর্ণ সংলাপ এবং তার নাচের যে পারদর্শিতা সে ব্যাপারে সবারই জানা নব্বইয়ের দশক ছিল তার জন্য সোনালী সময় ওই সময়টাতে অভিনেতা গোবিন্দ ব্যাপকভাবে জনপ্রিয়তা পেয়েছিলেন তার অভিনয় দক্ষতার জন্য এবং একের পর এক হিট সিনেমা থাকেন তিনি বলিউডে

Check Also

ভালো নেই পূর্ণিমা

ঢাকাই সিনেমার দর্শকপ্রিয় অভিনেত্রী পূর্ণিমা ভালো নেই। হঠাৎ করে কয়েকদিন ধরে ঠাণ্ডাজ্বর ও গলা ব্যথায় …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Recent Comments

No comments to show.