Home / মিডিয়া নিউজ / বাবা ডেকে সেই ভিক্ষুকের পায়ে সালাম করতে চাইলেন ওমর সানী

বাবা ডেকে সেই ভিক্ষুকের পায়ে সালাম করতে চাইলেন ওমর সানী

দেশে প্রাণঘাতী মহামারী কোন ভাইরাসের প্রভাবে যখন কিছু মানুষ ব্যস্ত তাদের নিজেদের স্বার্থসিদ্ধি

করতে এবং জনগণের ত্রাণ চুরি করে নিজেদের পকেট ভারী করতে ঠিক তখনই কিছু মানুষ আছে

যারা একদমই মানবিকতার চরম শিখরে। সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যাপক আলোচনায় এসেছে এক

বৃদ্ধের কর্মকাণ্ড। ৮০ বছর বয়সের ওই বৃদ্ধের নিজের থাকার কোনো ঘর নেই দুই বছর ধরে তিনি ভিক্ষা

করে সর্বসাকুল্যে তার ঘর মেরামতের জন্য ১০ হাজার টাকা জমিয়েছিলেন অবশ্য এটা দিয়ে তার ঘর তিনি

মেরামত করতেও পারতেন কিন্তু তা তিনি করেননি বরং দেশের এই ক্রান্তিকালে অসহায় দুস্থ না খেয়ে থাকা মানুষদের জন্য তিনি ওই টাকাটা দান করলেন। এক্ষেত্রে বলা হয়ে যায় আসলে প্রকৃত গরিব ই আর একজন গরিব মানুষের অভাব কে বুঝতে পারে।তাই এবার আবেগাপ্লুত হয়ে একজন ভিক্ষুককে বাবা বলে সম্বোধন করে ঢাকাই সিনেমার এক সময়ের সুপারস্টার ওমর সানী।

এই ভিক্ষুকও এমন ভালোবাসা পাওয়ার মতোই কাজ করেছেন। যে সময় গরিবের ত্রাণ চুরি করতে ব্যস্ত একদল মানুষ,

সেই সময় ভিক্ষার জমানো টাকা ত্রাণ তহবিলে দান করে দিয়েছেন নাজিম উদ্দিন নামের ৮০ বছর বয়সী এক ভিক্ষুক।

তার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে ফেসবুকে একটি পোস্ট দিয়েছেন চিত্রনায়ক ওমর সানী। ওই ব্যক্তির ছবির ক্যাপশনে নায়ক লিখেছেন, ’যে না কি মানুষের দ্বারে দ্বারে ঘুরে ভিক্ষা করে, সে দান করছে করোনাভাইরাসের ত্রাণ তহবিলে, শাবাশ বাবা আপনাকে পায়ে ধরে সালাম করতে চাই, আর কিছু মানুষের নামের উপর। থাক বললাম না। আমার তো বাবা নেই, তাই অনেক দিন পর বাবা বলে সম্বোধন করলাম।’

সম্প্রতি এই ভিক্ষুকের দান করার সংবাদ প্রকাশ হলে মুহূর্তেই তা ভাইরাল হয় সোশ্যাল মিডিয়ায়। মঙ্গলবার দুপুর ১টার দিকে শেরপুরের ঝিনাইগাতীর মালিঝিকান্দা ইউনিয়নের বাতিয়াগাঁও এলাকায় ইউএনও রুবেল মাহমুদের হাতে ওই টাকা তুলে দেন ভিক্ষুক নাজিম উদ্দিন।

৮০ বছর বয়সী নাজিম উদ্দিন ভিক্ষা করেই সংসার চালান। নিজের মাথা গোঁজার ঠাঁই বসতঘর মেরামতের জন্য দুই বছর ধরে ভিক্ষা করে সর্বসাকুল্যে ১০ হাজার টাকা জমালেও আরও টাকার প্রয়োজন।

আরও কিছু টাকা জমানোর অপেক্ষায় ছিলেন তিনি। কিন্তু নিজের ঘর মেরামত না করেই জমানো সর্বস্ব সম্বলটুকুই দান করলেন কর্মহীনদের খাদ্য সহায়তার জন্য খোলা তহবিলে। তিনি ঝিনাইগাতী উপজেলার কাংশা ইউনিয়নের গান্ধীগাঁও গ্রামের ইয়ার আলীর ছেলে।

গত রোববার ইউএনও রুবেল মাহমুদের নির্দেশে খাদ্য সহায়তার জন্য স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ’দি প্যাসিফিক’ ক্লাবের সদস্য ও স্থানীয় ইউপি সদস্যরা কর্মহীন

অসহায় দরিদ্রদের তালিকা প্রণয়নে গান্ধীগাঁও গ্রামে যান। এ সময় ভিক্ষুক নাজিম উদ্দিদের বাড়িতে গিয়ে তাকে ইউএন’র পক্ষ থেকে খাদ্যসামগ্রী দেয়ার কথা বলে তার জাতীয় পরিচয়পত্র দেখতে চান। কিন্তু ভিক্ষুক নাজিম উদ্দিন ওই তালিকায় তার নাম না দেয়ার জন্য অনুরোধ করেন।

উল্টো ওই ভিক্ষুক বলেন, নিজের বসতঘর মেরামত করার জন্য দুই বছরে ভিক্ষা করে জমিয়েছেন ১০ হাজার টাকা। এ টাকা স্বেচ্ছায় বর্তমান পরিস্থিতিতে অসহায়দের খাদ্য সহায়তা দেয়ার জন্য ওই তহবিলে দান করবেন তিনি। পরে মঙ্গলবার ’দি প্যাসিফিক’ ক্লাবের সদস্য ও স্থানীয় ইউপি সদস্য ইউএনও’র কাছে নিয়ে আসলে জমানো ১০ হাজার টাকা ইউএনও’র হাতে তুলে দেন ভিক্ষুক নাজিম উদ্দিন।

প্রসঙ্গত, দেশে চলছে মহামারী করোনাভাইরাস। করোনাভাইরাসের প্রকোপ বিপর্যস্ত মানুষ। বিশেষ করে দেশে দেশে চলমান অঘোষিত লকডাউন এর

কারণে বিপাকে পড়েছে দুস্থ এবং সাধারন মানুষরা। কর্মহীন এসব মানুষরা ঘরে থাকার ফলে খাদ্য সংকট দেখা দিচ্ছে তাদের। তবে এই সমস্যা সমাধানে সরকারের পাশাপাশি ব্যক্তি এবং বেসরকারি উদ্যোগে অনেকেই এগিয়ে আসছেন অসহায়দের পাশে তবে এরইমধ্যে ব্যতিক্রমী এক ঘটনা ঘটেছে মলিজিকান্দা ইউনিয়নের বাতিয়া গাও উপজেলায়। সেখানে ৮০ বছরের এক বৃদ্ধ যার নাম কিনা নাজিমুদ্দিন তিনি তার ঘর মেরামতের জন্য ভিক্ষা করে তোলা ১০০০০ টাকা অসহায়দের জন্য দান করলেন

Check Also

খোঁজ পাওয়া গেল সালমান শাহের আরেক নায়িকা সন্ধ্যার

ঢালিউডে তিনি যাত্রা করেছিলেন ‘প্রিয় তুমি’ সিনেমা দিয়ে। সেটা ১৯৯৫ সালের কথা। কলেজে পড়ার সময় …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Recent Comments

No comments to show.