Home / মিডিয়া নিউজ / কিসের জন্য আমার নাম জড়ানো হচ্ছে, আমাকে জড়িয়ে এমন কথা কেন বলা হচ্ছে: শাবনুর

কিসের জন্য আমার নাম জড়ানো হচ্ছে, আমাকে জড়িয়ে এমন কথা কেন বলা হচ্ছে: শাবনুর

বাংলা চলচ্চিত্রের সেরা অভিনেতা, বাংলা চলচ্চিত্রের সাড়া জাগানো সব থেকে বেশি স্টাইলিশ এ

অভিনেতা। বলছি বাংলা চলচ্চিত্রজগতের সেরা প্রিয় নায়ক সালমান শাহ’র কথা। কেয়ামত থেকে

কেয়ামত সিনেমায় অভিনয় করে ১৯৯৩ সালে প্রথম চলচ্চিত্রজগতে নিজেকে অভিষেক করে একে

একে অনেক সিনেমা করেন এই নায়ক। সালমান শাহের সাথে অসংখ্য ছবিতে একসঙ্গে কাজ করেছেন শাবনুর।

সালমান শাহ আর শাবনুরের জুটি ছিল বাংলা চলচ্চিত্রের সেরা জুটি। ১৯৯৬ সালে সালমান শাহ আত্মহনন করেন। অনেকে মনে করেন সালমানের আত্মহননের পিছনে শাবনুর রয়েছে। যদিও শাবনুর এ কথার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে।

আমি তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। কিসের জন্য আমার নাম জড়ানো হচ্ছে! সালমান যদি আত্মহনন করে, তাহলে আমার কারণে কেন করবে! আমার নামটা জড়ানোর আগে সবারই একবার ভাবা উচিত।’ পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) তদন্তে সালমান শাহর আত্মহনন শাবনূরকে নিয়ে দ্বন্দ্বের জের প্রসঙ্গ মনে করিয়ে দিতে ক্ষোভ প্রকাশ করেন শাবনূর।

পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) তদন্ত তুলে ধরার পরপরই অস্ট্রেলিয়ায় থাকা শাবনূরের সঙ্গে যোগাযোগ করে প্রথম আলো। সিডনি থেকে ঢালিউডের জনপ্রিয় এই অভিনয়শিল্পী প্রথম আলোকে বলেন, ’একজন প্রয়ত মানুষের সঙ্গে আমাকে জড়িয়ে কথা বলাটা খুব বিশ্রী মনে হয়েছে।’

শাবনূর এ আরও বলেন, ’আমাকে জড়িয়ে এমন কথা কেন বলা হচ্ছে, তা আমি জানি না! সালমান ও আমাকে জড়িয়ে এই ধরনের কথা কেউ যদিও বলে থাকে, সেটার আমি ঘোর বিরোধিতা করছি। সালমান শুধুই আমার নায়ক ছিল, সহশিল্পী ছিল, বন্ধু ছিল, এর বাইরে আর কোনো সম্পর্ক ছিল না। আমি আগেও বলেছি, তাকে আমি ভাইয়ের মতো শ্রদ্ধা করতাম। তার সঙ্গে আমার ভাই-বোনের সম্পর্ক ছিল। অন্য রকম পরিচ্ছন্ন সম্পর্ক ছিল। এটা নিয়ে এখন কেউ কিছু বললে তা তো আমি মানবই না। একজন মরা মানুষকে নিয়ে এত বছর পর এত বিশ্রী কথা বলার মন মানসিকতা কীভাবে সবার হয়, সেটাও আমি বুঝি না।’

শাবনূর বলেন, ’আমি তখন অবিবাহিত একটা মেয়ে। সালমান তো বিবাহিত। ওর স্ত্রীর সঙ্গেও আমার একটা ভালো সম্পর্ক ছিল। সালমানের স্ত্রী সব সময় আমাদের সঙ্গেই থাকত। প্রেমের সম্পর্কের কিছু একটা যদি হতো, এটা তখন সবাই বুঝতে পারত। এত বছর পর এই ব্যাপারটা নিয়ে আমাকে জড়িয়ে নোংরা উক্তি করার ব্যাপারটি মোটেও ভালো লাগছে না। কিছু মানুষ আমাকে জড়িয়ে গুজব ছড়িয়েছে। এখনো ছড়াচ্ছে।’

সালমান শাহকে নিয়ে শাবনূর এর আগে প্রথম আলোকে বলেছিলেন, ’সালমানের কোনো বোন ছিল না। তাই সে আমাকে তার ছোট বোন হিসেবেই দেখত।

আমাকে সে পিচ্চি বলে ডাকত। সালমানের মা-বাবাও আমাকে খুবই আদর করতেন। সালমানের কারণে তাঁরা আমাকে তাঁদের মেয়ে হিসেবেই দেখতেন। সালমান যেহেতু আমাকে ছোট বোনের মতো দেখত, আমিও তাকে সেভাবেই সম্মান করতাম। তবে আমাদের মধ্যে কিন্তু বন্ধুত্বপূর্ণ একটা সম্পর্কও ছিল। সালমানের বউ সামিরাও কিন্তু আমার ঘনিষ্ঠ বন্ধু। সালমান নাচ একটু কম পারত। সে তুলনায় আমি নাচে বেশি পারদর্শী ছিলাম। সালমান আমাকে প্রায়ই বলত, “আমাকে একটু নাচ দেখিয়ে দে তো।” আমিও আগ্রহ নিয়ে কাজটা করতাম। সালমান অনেক বড় মনের মানুষ। বয়সে বড় সবাইকে সে যথেষ্ট সম্মান করত। কোনো অহংকার তার মধ্যে ছিল না। অনেক বেশি ভালো ছিল। সহশিল্পীদের সবার প্রতি খুব আন্তরিক আর কাজপাগল একটা ছেলে ছিল। আমাদের দুজনের বোঝাপড়াটা ছিল চমৎকার। বলতে পারেন, একে অন্যের চোখের ইশারা বুঝতে পারতাম।’

সালমানের প্র‍য়ত হবার সংবাদ কীভাবে পান? জানতে চাইলে শাবনূর বলেন, ’সালমানের প্র‍য়ত হবার সংবাদটা যখন পাই, তখন আমি বাসায় ছিলাম। হঠাৎ করে কে যেন ফোন করে জানায়, সালমান শাহ মারা গেছে। আমি উল্টো ধমক দিয়ে বলি, কী বলো এসব! আমার ছোট বোন বাইরে গিয়ে সালমানের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত হয়ে আসে। আমি তখন পুরোপুরি হতবাক হয়ে যাই। এরপর এফডিসিতে সালমানকে দেখতে যাই।’

প্রসঙ্গত, সালমান শাহের সঙ্গে অসংখ্য সিনেমায় কাজ করেছেন শাবনুর। সালমান শাহ ছিল শাবনুরের খুব কাছের বন্ধু, সহ শিল্পী, বড় ভাইয়ের মত সম্মান করত শাবনুর সালমানকে। সালমানের সাথে শাবনুরের অন্যরকম পরিছন্ন সম্পর্ক ছিল এমনটা বলেন শাবনুর। শাবনুর আরও বলেন তার আত্মহননের কথা শুনে আমি তাকে দেখতে গিয়েছিলাম। আমর খুব খারাপ লেগেছিল কারন সে আমর খুব ভাল বন্ধু ছিলেন। তবে সালমানের আত্মহননকে কেন্দ্র করে আমাকে জড়িয়ে নোংরা উক্তি করার ব্যাপারটি মোটেও ভালো লাগছে না বলে জানান শাবনুর।

Check Also

ভালো নেই পূর্ণিমা

ঢাকাই সিনেমার দর্শকপ্রিয় অভিনেত্রী পূর্ণিমা ভালো নেই। হঠাৎ করে কয়েকদিন ধরে ঠাণ্ডাজ্বর ও গলা ব্যথায় …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Recent Comments

No comments to show.