Home / মিডিয়া নিউজ / পলিটিক্সকে ডরাই না, ডরাই মিডিয়াকে : রজনীকান্ত

পলিটিক্সকে ডরাই না, ডরাই মিডিয়াকে : রজনীকান্ত

দক্ষিণ ভারতের তারকা রজনীকান্ত বছরের শেষ দিনে তাঁর রাজনৈতিক ইনিংস ঘোষণা করেছেন।

এদিন চেন্নাইয়ের সমবেত ভক্তদের সুপারস্টার রজনীকান্ত বলেন, আমি রাজনীতিতে আসছি।

তার রাজনীতিতে আসা নিয়ে বেশকিছুদিন ধরেই গুঞ্জন চলছিল। প্রসঙ্গত, দক্ষিণ ভারতে রজনীকান্ত এতটাই জনপ্রিয় যে ধারণা করা হয়- তিনি চাইলে যে কোনো সময়েই তার রাজ্যের সরকারকে ফেলে দিতে পারেন।

সাবেক মুখ্যমন্ত্রী জয়ললিতা মারা যাওয়ার পরে এক অনুষ্ঠানে এমন কথার স্বীকৃতি রজনীর মুখে শোনা গিয়েছিল। তিনি দুঃখপ্রকাশ করে জানিয়েছিলেন, একবার তিনি সাবেক জনপ্রিয় নায়িকা ও মুখ্যমন্ত্রী জয়ললিতার সমালোচনা করেছিলেন- তারপরের নির্বাচনে জয়ললিতার দল হেরে যায়, তিনি ক্ষমতাচ্যুত হন।

চেন্নাইয়ের শ্রী রাঘবেন্দ্র কল্যাণ মণ্ডপে জড়ো হওয়া ভক্তদের রজনী জানান যে তিনি রাজনীতি কুটিল জগৎকে ভয়-ডর পান না, তবে অবশ্যই মিডিয়াকে ভয় পান।

রজনীকান্ত বলেন, তবে আমার রাজনীতিতে আসতে সময় লাগবে। অবশ্য তবে তার কথায় বোঝা যায় সেই সময়টা বেশি দীর্ঘ হবে না।

দক্ষিণ ভারতের সিংহভাগ মানুষের পরমপ্রিয় শ্রদ্ধাভাজন রজনীকান্ত ঘোষণা করেন যে আগামী বিধানসভা নির্বাচনে তিনি ২৩৪ আসনের সবকটি আসনে প্রার্থী দিতে সক্ষম হবেন। সেজন্য নির্বাচনের আগে রাজনৈতিক দল গঠন করবেন।

তিনি বলেন, তামিলনাড়ুতে রাজনৈতিক পরিবর্তনের সময় এসে গেছে। তিনি অভিযোগ করেন, গণতন্ত্রকে এ রাজ্যে ক্ষতিগ্রস্ত করা হয়েছে।

তার প্রত্যেকটি ঘোষণা আর বাক্যে উপস্থিত ভক্তরা উল্লাস প্রকাশ করে করতালি দেয়। মহাতারকাকে তারা রাজনীতির অঙ্গনে আসতে আগাম স্বাগত জানাতে থাকে।

রজনীকান্ত দাবি করেন যে তিনি তামিলনাড়ুর রাজনৈতিক সংস্কৃতির পরিবর্তন করবেন।

তিনি জানান, তার রাজনীতি ক্ষমতা, অর্থ এবং রাজনীতিক শক্তির লোভের জন্য হবে না।

অপরদিকে, রাজনীকান্তের রাজনীতিতে আসার ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে দক্ষিণের অপর সুপারস্টার কমল হাসানের রাজনীতিতে আসার বিষয়টিও আলোচনায় আসছে। তিনিও এ ব্যাপারে আগ্রহ দেখিয়েছেন সম্প্রতি এবং রাজ্যের রাজনৈতিক পরিস্থিতির সমালোচনা করেছেন। তবে কমল কি রজনীর পার্টিতে যোগ দেবেন না নিজে আলাদা পার্টি করবেন- এটাই এখন দেখার বিষয়। ক্রেডিটঃ জনসত্তা.কম, ইন্ডিয়াটাইম্‌স.কম

Check Also

খোঁজ পাওয়া গেল সালমান শাহের আরেক নায়িকা সন্ধ্যার

ঢালিউডে তিনি যাত্রা করেছিলেন ‘প্রিয় তুমি’ সিনেমা দিয়ে। সেটা ১৯৯৫ সালের কথা। কলেজে পড়ার সময় …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Recent Comments

No comments to show.